চলার ক্ষমতা হারাতে পারেন মায়োসাইটিস রোগে!

হঠাৎ করে হাতে-পায়ে অক্ষমতা দেখা দিলে অথবা ধীরে ধীরে অঙ্গ সঞ্চালন বিকল হলে, প্রায় পঙ্গু হয়ে শয্যাশায়ী এমন পরিস্থিতি হলে বুঝতে হবে হয়তো বড়সড় অসুখই বাসা বেঁধেছে শরিরে। মায়োসাইটিস এমনই এক অসুখ। অনেক কারণেই হতে পারে।

জেনে নিন মায়োসাইটিস রোগের লক্ষণ এবং করণীয়গুলো-

চিকিৎসকদের তথ্যমতে, রোগী বেশ কিছুক্ষণ চেয়ারে বসে আছেন, যেই উঠতে যাবেন মনে হবে শরীর আর চলছে না।’ যদি খাদ্যনালির পেশি কিংবা ডায়াফ্রাম পেশিতে এই সমস্যা হয়, তবে খাবার খেতে বা শ্বাস নিতেও সমস্যা হতে পারে। ঠিক মতো চিকিৎসা না হলে, শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা থেকে মৃত্যুর আশঙ্কাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

কোন কোন লক্ষণে চেনা যায় এই রোগ?

প্রথম প্রথম দেহের বিভিন্ন অঙ্গে শুরু হয় ব্যথা। হাত, পা, ঘাড়ের পেশিতে যন্ত্রণা হয়। তবে যে কোনো পেশিতেই বাসা বাঁধতে পারে এই রোগ। পেশি এতই দুর্বল হয়ে যায় যে, রোগী মাঝেমধ্যেই পড়ে যেতে পারেন। একটানা দাঁড়িয়ে থাকলে কিংবা দীর্ঘক্ষণ বসে থাকলে ক্লান্ত লাগে শরীর।

ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া – কিছু ওষুধ রয়েছে যেগুলো খেলে তার প্রভাবে পেশিতে প্রদাহ শুরু হতে পারে।
ট্রমা বা ইনজুরি – শারীরিক ট্রমা বা আঘাত থেকে পেশিতে মায়োসাইটিস হতে পারে। এই ধরনের মায়োসাইটিসের চিকিৎসা আলাদা।
ক্যানসার – মারণরোগে আক্রান্ত হলে তার প্রভাবে শরীরের অটোইমিউন রিঅ্যাকশন বেড়ে যায়। ফলত পেশিতে প্রদাহ তৈরি হয়। একে বলা হয় প্যারানিওপ্লাস্টি সিনড্রোম। ফলে হাঁটাচলায় সমস্যা শুরু হয়।
এছাড়া বয়সজনিত কারণেও বয়সকালে মায়োসাইটিস হতে পারে। অনেক সময় কোনও সিফুড খেয়ে তা থেকে পয়জনিং হয়ে এমন হতে পারে। অথবা কারও কারও ক্ষেত্রে কোনও ভাইরাস বা ব্যাকটিরিয়া থেকে সংক্রমণ হয়েও এমন হয়।

যে লক্ষণ দেখা দিলে সাবধান হতে হবে-

পেশির দুর্বলতা – এই অসুখ শরীরের বিভিন্ন পেশিতে প্রভাব ফেলে। যার জেরে প্রতিদিনের কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটে।
পেশিতে ব্যথা – অসহ্য পেশিতে ব্যথা হয়।
পেশি শিথিল হয়ে যাওয়া – এক্ষেত্রে পেশি শিথিল হয়ে পড়ে। তাই কোনও অঙ্গই নাড়ানো যায় না।
ত্বকে র‌্যাশ – এক্ষেত্রে স্কিনে লাল লাল র‌্যাশ বের হয়। যা খুবই বাড়াবাড়ি পর্যায়ে যায়। এক্ষেত্রে চোখের ওপরের পাতায় র‌্যাশ বের হতে পারে। নীলচে একটা প্রদাহ তৈরি হয়। এতে হিলিওট্রোপ র‌্যাশ বলে।
জয়েন্ট পেইন – এই অসুখ হলে শরীরের গিরায় গিরায়ও কারও কারও ক্ষেত্রে ব্যথা হয়। অনেকেই তাই আর্থ্রাইটিস ভেবে ভুল করেন।
ক্লান্তি – পেশি দুর্বল হলে, ব্যথা শুরু হলে তা থেকে অনেকেই ক্লান্ত হয়ে পড়ে। ফলে প্রতিদিনের কাজ ব্যাহত হয়।
এই সমস্যা বাড়াবাড়ি পর্যায়ে গেলে রোগীর হাঁটাচলা বন্ধ হয়ে যায় সঙ্গে নিশ্বাসের সমস্যা শুরু হয়। এতটাই সমস্যা হয় যে ভেন্টিলেশনের দরকার হয়।

রোগ নির্ণয়ে-
এই রোগ নির্ণয় করতে গেলে রোগীর পেশিতে বায়োপসি করার দরকার পড়ে। এছাড়া কিছু রক্ত পরীক্ষা করে রোগ নির্ণয় করার দরকার পড়ে। ইমেজিং টেস্ট ও ইলোকট্রোমায়োগ্রাফি করেও রোগ নির্ণয় করা হয়। তবে কখন কার কী টেস্ট দরকার সেটা চিকিৎসক রোগীর অবস্থা বুঝে নির্দেশ দেন।

চিকিৎসা-

চিকিৎসকরা জানান, মূলত ইমিউনো সাপ্রেসিভ ও স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা হয় এই রোগের। তবে রোগের প্রকারভেদ রয়েছে। রোগের প্রকৃতি এবং রোগী চিকিৎসায় কতটা সাড়া দিচ্ছেন, তার ওপর নির্ভর করছে অনেক কিছুই। কখনো কখনো সারা জীবনও ওষুধ খেতে হতে পারে রোগীকে।

Leave a Comment